সমাজসেবা অধিদফতর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৯ নভেম্বর ২০১৯

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বিষয়ক মহাপরিচালক, সমাজসেবা অধিদফতরএর জরুরী নির্দেশনা


প্রকাশন তারিখ : 2019-11-09
ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বিষয়ক মহাপরিচালক, সমাজসেবা অধিদফতরএর জরুরী নির্দেশনা: ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবেলায় সমাজসেবা অধিদফতরের গঠিত টিমের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ হবে সভাকক্ষ মেঘনা। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় গৃহীতব্য সতর্ক অবস্থা সমূহ কঠোরভাবে প্রতিপালনের জন্য সমাজসেবা অধিদফতর ও জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দকে মহাপরিচালক স্যারের দিকনির্দেশনা নিন্মরূপ প্রদান করা হলোঃ ১. বুলবুল মোকাবিলায় গঠিত সমাজসেবা অধিদফতরের কন্ট্রোল রুম ২য় তলার মেঘনা সভাকক্ষে স্থাপিত থাকবে এবং কর্তব্যরত কর্মকর্তাবৃন্দ পালাক্রমে কর্মসম্পাদন করবেন। কর্তব্যরত কর্মকর্তাবৃন্দকে মহাপরিচালকসহ মাঠপর্যায়ের সংশ্লিষ্ট সকল স্তরের কর্মকর্তাদের সাথে নিবিড় যোগাযোগ রক্ষা করবেন। ২. উপকূলীয় জেলা ও তদ্বসন্নিকটবর্তী এলাকায় অবস্থিত সরকারি শিশু পরিবার এবং অন্যান্য আবাসিক প্রতিষ্ঠানের নিবাসীদের সুরক্ষার জন্য সর্বোত্তম ব্যবস্থা গ্রহণ নিশ্চিত করবেন। ৩. বুলবুল আঘাতহানার পর্যাপ্ত সময়ের পূর্বে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ভবনের সবচেয়ে নিরাপদ স্থানে সকল নিবাসীদের স্থানান্তর নিশ্চত করবেন এবং সেখানে প্রয়োজনীয় খাদ্য ও পানীয় মজুদ নিশ্চিত করবেন। ৪. প্রয়োজনে যাতে নিকটতম সেন্টারে দ্রুততম সময়ে নিবাসীদের স্থানান্তর করা যায় সে ব্যবস্থা রাখতে হবে। ৫. এ সকল এলাকার সকল ইউনিট দপ্তরের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী সার্বক্ষনিক কর্তব্যরত থাকবেন এবং উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া স্টেশন ত্যাগ করবেন না। ৬. প্রতিষ্ঠান সমূহে ফাস্টএইড এবং প্রয়োজনীয় ঔষুধ পথ্য পর্যাপ্ত পরিমান মজুদ রাখবেন। ৭. প্রতিবন্ধী ও এনডিডি বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন শিশু ও ব্যক্তি, প্রবীন, নারী ও শিশুদের সুরক্ষায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে। ৮. নিকটবর্তী প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্যকেন্দ্রের সকল কর্মকর্তা, ফিজিওথেরাপিস্ট ও টেকনিশিয়ানগণ সর্তক অবস্থায় থাকবেন। থেরাপি ইকুবমেন্ট সমূহ কার্যকর অবস্থায় রাখবেন। জেনারেটর সমূহে জ্বালানী মজুদ রাখবেন যাতে ইকুবমেন্ট সমূহ প্রয়োজন মতে অপারেট করা যায়। প্রতিবন্ধী ও এনডিডি বৈশিষ্ট্য সম্পন্ন শিশু ও ব্যক্তি এবং প্রতিবন্ধিতার ঝুঁকি রয়েছে এরুপ সকলের জন্য প্রয়োজনীয় ইন্টারভেনশন নিশ্চিত করবেন। ৯. দূর্যোগ উত্তরকালে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরূপন, প্রয়োজন অনুযায়ী তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ, হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, কমিউনিটি ক্লিনিক সমূহের সাথে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষা করতে হবে। ১০. দূর্যোগপীড়িত ব্যক্তি ও শিশুদের দ্রুততম সময়ে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে। ১১. উপজেলা ও জেলা প্রশাসন এবং সমাজসেবা অধিদফতরের জেলা,বিভাগীয় এবং সদর দপ্তরের সাথে নিবিড় যোগাযোগ রাখতে হবে। ১২. উপকূলীয় উপজেলা, জেলা সমূহে এবং সকল কিবাগীয় কার্যালয়ে কন্ট্রোলরুম স্থাপন করতে হবে। বিষয়টি অতিব জরুরী ও জনগুরুত্বপূর্ণ।

Share with :

Facebook Facebook